সৌম্য সরকার বাংলাদেশের বাহাতি ওপেনার ব্যাটম্যান। প্রথমে তাকে যে ভূমিকায় দেখা গিয়েছিল ক্রিকেটে কিন্তু সেই ভংস্কর রুপে তাকে আর দেখা মিলছে না। দীর্ঘ দিন ধরে ফর্মহীনতায় ভুগছেন সৌম্য সরকার। বিশেষ করে সদ্য শেষ হওয়া চ্যাম্পিয়নস ট্রফির মতো বড় আসরে সৌম্য সরকারের মলিনভাব চিন্তায় ফেলেছে ক্রিকেট বোদ্ধাদের। সর্বশেষ আয়ারল্যান্ডের ত্রিদেশীয় সিরিজ ও চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে পারফরম্যান্সই বলে দিচ্ছে, সময়টা সুখকর যাচ্ছে না তার। ৮৭, ০, ১৯, ২, ২৮, ৩, ৩ ও ০

এই ছিল তার স্কোর।

এমন নাজুক পারফরম্যান্স তাকে ঠেলে দিয়েছে হতাশার বৃত্তে। উঠেছে নানা প্রশ্ন। জমেছে শঙ্কার কালো মেঘ। চলছে নিন্দুকদের ঝড়ো সমালোচনা। সে কারণেই হয়তো নিজেই কিছুটা ক্ষুব্ধ নিজের ওপর। নিন্দুকেরা যতই সমালোচনা করুক না কেন নিজেকে বুঝ দেয়ার মতো কিছু মসলাও তো থাকতে হবে। সেটি নেই বলেই হয়তো হতাশায় পুড়ছেন তিনি। তা না হলে কী বলতে পারেন, ‘দেখুন লম্বা একটা সফর শেষে দেশে ফিরলাম। চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে ভালো-খারাপ দুটাই ছিল। এখন ছুটিতে আছি। এই সময়টা আমি ক্রিকেট থেকে দূরে থাকতে চাই। ক্রিকেট নিয়ে ভাবতে চাই না। যখন আবার ক্যাম্প শুরু হবে তখন ক্রিকেট নিয়ে ভাবা শুরু করব।’

আগস্ট-সেপ্টেম্বরে অস্ট্রেলিয়া সিরিজ আর সেপ্টেম্বরের শেষ দিকে সাউথ আফ্রিকা সফরে যাবে বাংলাদেশ দল। এই দুই প্রতিপরে বিপে সৌম্য সরকারকে হয়তো আরো দু-একটা সুযোগ দিতে পারেন নির্বাচকরা। তাতেও যদি আলো ছড়াতে ব্যর্থ হন সৌম্য। তাহলে হয়তো তাকে নিয়ে ভিন্ন কিছুই ভাববে নির্বাচকেরা। কারণ বর্তমানে পাইপলাইনে বহু ব্যাটসম্যানই রয়েছে খালি জায়গা পূরণের জন্য।

২০১৪ সালে এক দিনের ক্রিকেটে অভিষেক হয় সৌম্য সরকারের। এর পর থেকে অদ্যবধি ৩১টি ওয়ানডে খেলে করেছেন ৯৫৯ রান। সর্বোচ্চ ১২৭। ব্যাটিং গড় ৩৫.৫১। পাশাপাশি খেলেছেন ৭টি টেস্ট (৪৮২) আর ২৪ ম্যাচ টি-২০ (৪৪৩)।

Like Our Education page