এটি বাংলাদেশের জন্য চরম সুখবর।  ২০১৯ বিশ্বকাপের পর চার বছরের প্রস্তাবিত এ টেস্ট লিগের সূচিতে বাংলাদেশ খেলবে ১২ টেস্ট সিরিজ।  ওয়ানডে ও টেস্ট লিগ বাস্তবায়ন হওয়ার কাছাকাছি।  আইসিসির প্রধান নির্বাহীদের কমিটির আলোচনা সভা শেষে ওয়ানডে ও টেস্ট লিগের সম্ভাব্য সূচি তৈরি হয়েছে।  ২০১৯-২৩ সাল পর্যন্ত টেস্ট র‌্যাংকিংয়ের শীর্ষ ৯টি দলই হোম অ্যান্ড অ্যাওয়ে ভিত্তিতে খেলবে ১২টি সিরিজ।  জিম্বাবুয়ে এবং দুই নতুন টেস্ট দল আয়ারল্যান্ড ও আফগানিস্তান এ লিগের অংশীদার হবে না। 

অংশ নেবে ভারত, অস্ট্রেলিয়া, দণি আফ্রিকা, নিউজিল্যান্ড, ইংল্যান্ড, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও বাংলাদেশ।  ক্রিকইনফোতে দেয়া দলগুলোর প্রস্তাবিত টেস্ট সিরিজের সূচি প্রকাশিত হয়েছে।  বাংলাদেশ খেলবে অস্ট্রেলিয়া, ভারত, শ্রীলঙ্কা, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, নিউজিল্যান্ড, পাকিস্তান ও দণি আফ্রিকার বিপ। ে ইংল্যান্ডের বিপে কোনো সিরিজ নেই বাংলাদেশের।  প্রত্যেক সিরিজ কমপে ২ ম্যাচের হবে। 
চার বছরের মধ্যে বাংলাদেশ একটি করে সিরিজ খেলবে অস্ট্রেলিয়া ও দণি আফ্রিকার বিপ। ে এ ছাড়া প্রত্যেকের বিপে হোম ও অ্যাওয়ে ভিত্তিতে দুটি টেস্ট সিরিজ খেলবে তারা।  সূচি অনুযায়ী হোম ভেনুতে বাংলাদেশের প্রথম প্রতিপ অস্ট্রেলিয়া।  আর ২০২৩ সালে এ সূচির ভিত্তিতে বাংলাদেশের শেষ ম্যাচ হবে দণি আফ্রিকায়। 
প্রস্তাবিত ওয়ানডে লিগের সূচি
আইসিসির ওয়ানডে লিগে ২০২০-২১ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ খেলবে ৮ সিরিজ।  এ লিগ হবে ১৩ দেশকে নিয়ে।  র‌্যাংকিংয়ের উপরের দিকে থাকা ইংল্যান্ড, দণি আফ্রিকা ও নিউজিল্যান্ড ছাড়াও বাংলাদেশ মোকাবেলা করবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা, জিম্বাবুয়ে, আফগানিস্তান ও আয়ারল্যান্ডকে।  দুই বছরে প্রত্যেক দল চারটি করে সিরিজ খেলবে হোম ও অ্যাওয়ে ভেন্যুতে।  পয়েন্টের ভিত্তিতে হবে লিগ।  আইসিসি তিন ম্যাচ সিরিজের প্রস্তাব করলেও দলগুলো চাইলে আলোচনার ভিত্তিতে আরো ম্যাচ খেলতে পারবে।  তবে সেই পয়েন্টগুলো লিগের ফলাফলে যোগ হবে না। 
প্রস্তাবিত সূচি অনুযায়ী ২০২০ সালে বাংলাদেশ স্বাগত জানাবে ইংল্যান্ড ও আফগানিস্তানকে।  এর পর ওই বছর আয়ারল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ড সফরে যাবে তারা।  পরের বছর ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও শ্রীলঙ্কা আসবে বাংলাদেশে।  দণি আফ্রিকা ও জিম্বাবুয়ে সফর দিয়ে শেষ হবে বাংলাদেশের ওয়ানডে লিগ। 

Like Our Education page