38th bcs


৩৮ তম বিসিএস পরীক্ষার প্রস্তুতিঃ



সবাইকে Studyonlinebd.com এর পক্ষ থেকে আসসালামু আলাইকুম । আশা করি আপনারা সবাই ভাল আছেন । শুরুতেই আমি বলতে চাই আমাদের কোন ভুল হলে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন। অনেকে এই পোস্ট পড়ার পরে আমাদের কাছে একটা প্রশ্ন করবে পরীক্ষার তারিখ কি হয়েছে ? ক্ষমা করে দিবেন ভাই পরীক্ষার তারিখের জন্য বসে থাকলে আমাদের করার কিছু নাই ।  আমাদের একটা বড় সমস্যা আছে সবাই চাকরি

চাই, কিন্তু পড়তে চাই না। তার পরেও আপনাদের ইচ্ছে ...আমরা আপনাদের কে সব রকম সাহায্য করতে চাই, এখন আপনাদের ইচ্ছে থাকলে আমাদের সাথে পরীক্ষার প্রস্তুতি নিতে পারেন।  কি ভাবে আপনি আমাদের সাথে পরীক্ষার প্রস্তুতি নিবেন বিস্তারিত জেনে নেনঃ



সম্পূর্ণ ফ্রিতে  ৩৮ তম বিসিএস পরীক্ষার প্রস্তুতি নেন আমাদের সাথেঃ



আমরা প্রতিদিন এক অধ্যায় বলে দিবো, আপনারা ঐ অধ্যায় পড়া শুনা করে  প্রতিদিন রাত ৮ঃ৩০ মিনিটে পরীক্ষা দিবেন ।



এতে আপনাদের বই খুব দ্রুত শেষ হয়ে যাবে।



 



এতে আপনার লাভ কি হবে?



প্রতিদিন এক অধ্যায় পড়া শুনা করতে পারবেন । তার পরে রাতে এসে নিজেকে যাচাই করতে পারবেন , সারা দিন কত টুকু পড়াশুনা করেছেন আপনি ?



প্রায় এক মাস হচ্ছে এই ভাবে আমরা পরীক্ষা নিচ্ছি । 



 



কি ভাবে আমাদের পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করবেনঃ



 প্রথমে আমাদের ওয়েবসাইট Studyonlinebd.com  এতে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে(রেজিস্ট্রেশন করতে আপনার কোন সমস্যা হলে আমাদের ফেসবুক পেইজে এসএমএস করুন) । তার পরে লগইন করে Daily Exam  এ পাবেন প্রতিদিনের পরীক্ষার প্রশ্ন ।পরীক্ষায় নেগেটিভ মার্কিং  আছে প্রতি ৪ টা ভুল প্রশ্নের জন্য ১ মার্ক কাটা যাবে।



 



প্রতিদিনের পরীক্ষায় কি থাকবে তা জানতে পারবেন: Studyonlinebd.com এর  নোটিশ বোর্ডে  



আমাদের ফেসবুক পেইজেঃ  Studyonlinebd.com



আমাদের ফেসবুক গ্রুপেঃ Daily Online Exam- Studyonlinebd.com



 



পরীক্ষায় কোথায় থেকে, কত মার্কের প্রশ্ন হবে তা জেনে নেন নিচে থেকেঃ



 



 



বিসিএস থেকে প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় নতুন প্রশ্নের মান বণ্টনঃ





 



১। বাংলা ভাষা ও সাহিত্য- ৩৫





 



২। ইংরেজি ভাষা ও সাহিত্য- ৩৫





 



৩। বাংলাদেশ বিষয়াবলি- ৩০





 



৪। আন্তর্জাতিক বিষয়াবলি- ২০





 



৫। ভূগোল (বাংলাদেশ ও বিশ্ব), পরিবেশ ও দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা- ১০





 



৬। সাধারণ বিজ্ঞান-১৫





 



৭। কম্পিউটার ও তথ্যপ্রযুক্তি- ১৫





 



৮। গাণিতিক যুক্তি- ১৫





 



৯। মানসিক দক্ষতা- ১৫





 



১০। নৈতিকতা, মূল্যবোধ ও সুশাসন- ১০





 



মোট=২০০ মার্ক ।



 



 



বিসিএস পরীক্ষার গনিত সিলেবাসঃ১৫ নাম্বার





 



১। বাস্তব সংখ্যা, ল.সা.গু,গ.সা.গু, শতকরা,সরল ও যৌগিক মুনাফা,অনুপাতও সমানুপাত, লাভ ও ক্ষতি। = ০৩ নাম্বার





 



২। বীজগাণিতিক সূত্রাবলি,বহুপদী উৎপাদক , সরল ও দ্বিপদী সমীকরণ, সরল ও দ্বিপদী অসমতা, সরল সহসমীকরণ।= ০৩ নাম্বার





 



৩। সূচক ও লগারিদম, সমান্তর ও গুণোত্তর অনুক্রম ও ধরা। =০৩ নাম্বার





 



৪।রেখা, কোণ, ত্রিভুজ ও চতুর্ভুজ সংক্রান্ত উপপাদ্য, পিথাগোরাসের উপপাদ্য , বৃত্ত সংক্রান্ত উপপাদ্য, পরিমিতি-সরল ক্ষেত্র ও ঘনবস্তু= ০৩ নাম্বার





 



৫।সেট, বিন্যাস ও সমাবেশ পরিসংখ্যান্ব সম্ভাব্যতা= ০৩ নাম্বার



 



 



মানসিক দক্ষতা – ১৫ নম্বর





 



মানসিক দক্ষতা বিসিএস প্রিলিতে পূর্বে উল্লেখিত আকারে ছিল না। বিসিএস লিখিত পরীক্ষায় ৫০ নম্বরের প্রশ্নের উত্তর দিতে হত। যেহেতু ডিটেইল সিলেবাস আছে তাই সেই অনুসারে পড়াশোনা করলে ১৫ টি প্রশ্ন উত্তর করে নম্বর তোলা সম্ভব।





 





 



মানসিক দক্ষতার সিলেবাসে যা যা উল্লেখ আছেঃ





 



1. ভাষাগত যৌক্তিক বিচার (Verbal Reasoning)





 



2. সমস্যা সমাধান (Problem Solving)





 



3. বানান ও ভাষা (Spelling and Language)





 



4. যান্ত্রিক দক্ষতা (Mechanical Reasoning)





 



5. স্থানাংক সম্পর্ক (Space Relation)





 



6. সংখ্যাগত ক্ষমতা (Numerical Ability)





 





 





 



বাংলাঃ





 



৩৫ নম্বরঃ বাংলার সিলেবাসে দুটি অংশ। ভাষা – ১৫ নম্বর, সাহিত্য – ২০ নম্বর।





 



ভাষাঃ ১৫ নম্বর



প্রয়োগ-অপপ্রয়োগ, বানান ও বাক্যশুদ্ধি, পরিভাষা, সমার্থক ও বিপরীতার্থক শব্দঃ এগুলো এইচএসসির যে কোন ব্যাকরণ বইয়ে আছে। এর মধ্যে ‘ভুল-শুদ্ধি’ আর ‘পরিভাষা’ আগের সিলেবাসে লিখিত পরীক্ষায় ছিল। তাই আগের বাংলা বিসিএস লিখিত পরীক্ষার গাইড (যে কোনটা) দেখতে পারেন। অবশ্যই লিখিত পরীক্ষায় যে বাক্যশুদ্ধি আর পরিভাষা এসেছিল, সেগুলো আগে দেখুন। সিলেবাসে ‘বানান ও বাক্যশুদ্ধি’ আছে। তো এর জন্য এইচএসসির ব্যাকরণ বই তো দেখবেনই। সেই সাথে অবশ্যই নবম-দশম শ্রেণীর বোর্ডের ব্যাকরণ বই থেকে কয়েকটা অধ্যায় দেখতে পারেনঃ ণ-ত্ব বিধান, ষ-ত্ব বিধান, বাক্য (বাক্যের গুণ মানে আকাংক্ষা, আসত্তি, যোগ্যতার চাপ্টারটা), বচনের চাপ্টারেও কিছু নিয়ম আছে।





 



ধ্বনি, বর্ণ, শব্দ, পদ, বাক্য, প্রত্যয়, সন্ধি, সমাস: এগুলোর জন্য নবম-দশম শ্রেণীর বোর্ডের ব্যাকরণ বই যথেষ্ট। এখন কথা হলো – সিলেবাসে এই কয়টা জিনিস নির্দিষ্ট করে দেয়ায় একটা ধোঁয়াশা তৈরি হল। সিলেবাসে ‘শব্দ’ উল্লেখ আছে। এর মানে কি? শুধু শব্দের চাপ্টার নাকি শব্দতত্ত্ব বলতে ব্যাকরণে যা বুঝায় সেটা? আবার লক্ষ্য করুন প্রত্যয়, সমাস এগুলো উল্লেখ আছে। এগুলো দিয়ে কিন্তু শব্দই তৈরি হয়। কিন্তু উপসর্গ, বচন, লিঙ্গ এগুলো উল্লেখ নাই। এগুলোও শব্দতত্ত্বেরই অধীনে। আর আগের প্রিলিমিনারি প্রশ্ন বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, উপসর্গ, বচন এগুলো থেকে অনেক প্রশ্ন এসেছে। তাই এখানে কি পড়বেন সেই সিদ্ধান্তে একটু জটিলতা আছে। তো আমার পরামর্শ হল – আগে সরাসরি যেগুলো উল্লেখ আছে, সেই চ্যাপ্টারগুলো পড়ুন, তারপর সেই সাথে এগুলোর সাথে সম্পর্কিত জিনিসও অবশ্যই পড়তে হবে।





 



ধ্বনি, বর্ণ, উচ্চারণ স্থান, ধ্বনি পরিবর্তন, শব্দ, শব্দের শ্রেণীবিভাগ (উৎপত্তি, গঠন ও অর্থ অনুসারে), পদ, বাক্য, প্রত্যয়, সন্ধি, সমাস এগুলোর জন্য আলাদা আলাদা চ্যাপ্টার নবম-দশম শ্রেণীর বইটায় আছে। আর এর সাথে সম্পর্কিত চাপ্টারগুলোও বাদ দেয়া যাচ্ছে না। তার মানে কি? আমার দৃষ্টিতে এর মানে হলো – এই অধ্যায়গুলোর গুরুত্ব বেড়ে গেল। আর আপনি নিশ্চয়ই এতদিনে আগের প্রশ্ন বিশ্লেষণ করেছেন। সেই আলোকে অন্য অধ্যায় গুলোও পড়ুন।





 



সাহিত্যঃ ২০ নম্বর



সাহিত্যের জন্য আমার পছন্দের বই – সৌমিত্র শেখরের ‘জিজ্ঞাসা’।





 



সিলেবাসে সাহিত্যের জন্য আবার ২টা অংশ নির্দিষ্ট করে দিয়েছে। প্রাচীন ও মধ্যযুগ-৫ নম্বর, আধুনিক যুগ (১৮০০ থেকে বর্তমান)-১৫ নম্বর। এখন আগের রিটেনের সিলেবাসে বাংলার সাহিত্যের কিছু জিনিস উল্লেখ ছিল। এগুলো হলো (আমি আগের সিলেবাসটা থেকে কপি করে দিলাম) – চর্যাপদ, মঙ্গল কাব্য, রোমান্টিক কাব্য, ফোর্ট উইলিয়াম কলেজ, বিদ্যাসাগর, বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়, মধুসূদন, মীর মশাররফ হোসেন, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, দীনবন্ধু মিত্র, কাজী নজরুল ইসলাম, জসীম উদদীন, বেগম রোকেয়া, ফররুখ আহমেদ, কায়কোবাদ, আধুনিক ও সমসাময়িক কালের কবি, লেখক ও নাট্যকার।





 



এখানে ১১ জন কবি-সাহিত্যিকের নাম সরাসরি দেয়া ছিল। আর সাথে আধুনিক ও সমকালীন কবি, সাহিত্যিকদের কথা উল্লেখ ছিল। এখন ২৭-৩৪ বিসিএসের প্রিলি প্রশ্ন বিশ্লেষণ করলে দেখবেন বাংলার ২০ নম্বরের মধ্যে এগুলো থেকে ১৫ টার মত আসত। তাই এগুলো অনেক গুরুত্বপূর্ন ছিল। তো ৩৫-তম বিসিএসের জন্য লিখিত পরীক্ষার বিস্তারিত সিলেবাস এখনো দেয়নি। যদি প্রিলিমিনারি পরীক্ষার ১৫ দিন আগেও (মানে প্রশ্ন করার সময় হিসেবে বলছি) লিখিত পরীক্ষার বিস্তারিত সিলেবাস দেয়, তাতে এরকম কয়েকজন কবি-সাহিত্যিকের নাম সরাসরি থাকার কথা। তাহলে সেগুলোই হবে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। আর এখন আগের সিলেবাসের এই ১১ জনের সবকিছু পড়ে ফেলুন। আর আধুনিক ও সমকালীন কবি, সাহিত্যিকদের মধ্যে আগের প্রশ্ন দেখে বাছাই করুন – কারা গুরুত্বপূর্ণ। কয়েকজনের নাম চোখ বন্ধ করেই বলে দেয়া যায় – শামসুর রাহমান, শহীদুল্লাহ কায়সার, জহির রায়হান, মুনির চৌধুরী, সুফিয়া কামাল, সেলিম আল দীন, সেলিনা হোসেন, নির্মলেন্দু গুণ এরকম আরো অনেকেই। আমি এই মুহূর্তে যা মাথায় আসল, তাঁদের নামই লিখলাম। মানে এখানে আরও অনেকেই আসবে।





 



আর যদি কোন কবি, সাহিত্যিক সাম্প্রতিক সময়ে মারা যান, তাঁর তথ্য যে কোন পরীক্ষার জন্য গুরুত্বপুর্ণ। এছাড়া আগের লিখিত পরীক্ষার সিলেবাসটায় বড় একটা ফাঁক ছিল। সেটা হলো – প্রমথ চৌধুরী (চলিত ভাষায় অবদানের জন্য যাকে যে কোন বাংলা বিশেষজ্ঞ অনেক উপরে রাখেন), শরৎচন্দ্র (উপন্যাসকে যিনি দুপুরের ঘুমের ঔষধ বানিয়ে দিয়েছিলেন), ৩-বন্দ্যোপাধ্যায় (মানিক, বিভূতি, তারাশংকর), কবিতার পঞ্চ-পাণ্ডব (জীবনানন্দ, বুদ্ধদেব, সুধীন্দ্রনাথ, বিষ্ণু দে, অমিয় চক্রবর্তী), সুকান্ত ভট্টাচার্য – এরা ছিল না। কিন্তু এদের থেকে প্রশ্ন সব সময়ই আসত। তাই এদেরকে হেলাফেলা না করাই উচিত।





 



পঞ্চপাণ্ডবের মধ্যে জীবনানন্দ আর বুদ্ধদেবের সব কিছু পড়ে ফেলুন, এরা বাংলাদেশের (পূর্ববংগের) মানুষ ছিলেন।





 



মানিক বন্দ্যোপাধ্যায় হলেন সেই ব্যক্তি, যিনি বাংলা সাহিত্যে আলট্রা-রোমান্টিসিজম থেকে বের হয়ে বাস্তব জীবনের ছোঁয়া দিয়েছিলেন। আর মানিকের লেখায় পূর্ববাংলা গুরুত্ব পেয়েছিল। তাই মানিকের সব কিছু পড়ে ফেলা উত্তম।





 



শিশু সাহিত্যের কথা ধরলে সুকুমার রায় বাংলার একাধিপতি। তাঁর সম্পর্কেও পড়া উচিত।





 



বিসিএস ইংরেজি সিলেবাসঃ





 



English Language and Literature





 



Total Marks: 35





 



PART- I : Language 20





 



A) Parts of Speech:



→The Noun:



→The Determiner



→The Gender



→The Number



→The Pronoun



→The Verb: The Finite: transitive, intransitive The



Non-finite: participles, infinitives, gerund



→The Linking Verb



→The Phrasal Verb Modals



→The Adjective



→The Adverb



→The Preposition



→The Conjunction





 



B) Idioms & Phrases:



→Meanings of Phrases



→Kinds of Phrases



→Identifying Phrases





 



C) Clauses:



→The Principal Clause



→The Subordinate Clause:



→The Noun Clause



→The Adjective Clause



→The Adverbial Clause & its types





 



D) Corrections:



→The Tense



→The Verb



→The Preposition



→The Determiner



→The Gender



→The Number Subject-Verb Agreement





 



E) Sentences & Transformations:



→The Simple Sentence



→The Compound Sentence



→The Complex Sentence



→The Active Voice



→The Passive Voice



→The Positive Degree



→The Comparative Degree



→The Superlative Degree





 



F) Words:



→Meanings



→Synonyms



→Antonyms



→Spellings



→Usage of words as various parts of speech



→Formation of new words by adding prefixes and



suffixes





 



G) Composition:



→Names of parts of paragraphs/letters/



applications





 



PART- II: Literature- 15





 



English Literature:



→Names of writers of literary pieces from



Elizabethan period to the 21st Century.



→Quotations from drama/poetry of different ages.





 





 



বাংলাদেশ বিষয়াবলী – ৩০ নম্বর





 



বিসিএস প্রিলিতে সাধারণ জ্ঞান অংশে দুইটি অংশের একটি বাংলাদেশ বিষয়াবলী। এতে ৩০ টি প্রশ্ন থাকে। বাংলাদেশ সম্পর্কিত বিভিন্ন তথ্য এ অংশে থাকে। বাংলাদেশ বিষয়াবলী ভালো করতে হলে সমসাময়িক খবরাখবর তথ্য সম্পর্কে অবগত থাকতে হবে।





 





 



(১) বাংলাদেশের জাতীয় বিষয়াবলীঃ – ৬ নম্বর





 



এই অংশে আছে “প্রাচীন কাল হতে সমসাময়িক কালের ইতিহাস, কৃষ্টি ও সংস্কৃতি” অর্থাৎ বাংলাদেশের সৃষ্টির পূর্বের প্রাচীন শাসনামল অর্থাৎ মোঘল আমল, ইংরেজ শাসন আমল ইত্যাদি।





 



“বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের ইতিহাস, ভাষা আন্দোলন, ১৯৫৪ সালের নির্বাচন, ১৯৬৬ সালের ৬ দফা আন্দোলন, ১৯৬৮-৬৯ সালের গণ অভ্যুত্থান, ১৯৭০ এর নির্বাচন, ১৯৭১ সালের অসহযোগ আন্দোলন, ৭ ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ, স্বাধীনতা ঘোষণা, মুজিবনগর সরকারের গঠন ও কার্যাবলী, মুক্তিযুদ্ধের রণকৌশল, মুক্তিযুদ্ধে বৃহৎ শক্তিবর্গের ভূমিকা, পাক বাহিনীর আত্নসমর্পণ এবং বাংলাদেশের অভ্যুদয়” এই সেগমেন্টটি অনুসরণ করলে বোঝা যায় যে এর অন্তর্গত বাংলাদেশের জন্মের পূর্বে পাকিস্তান শাসনামল এবং বাংলাদেশের গৌরব উজ্জ্বল মুক্তিযুদ্ধ এত ইতিহাস।





 





 





 





 





 





 



(২) বাংলাদেশের কৃষিজ সম্পদঃ – ৩ নম্বর





 



“শস্য উৎপাদন এবং বহুমুখীকরণ; খাদ্য উৎপাদন ও ব্যবস্থাপনা” শিরোনাম পড়েই বুঝা যাচ্ছে বাংলাদেশের কৃষিজ সম্পদ সম্পর্কে ৩ টি প্রশ্ন থাকবে। মূলত জানতে হবে বাংলাদেশের কৃষিজ সম্পদে কি কি শস্য / খাদ্য শস্য উৎপাদন হয়। কোন জেলায় কোন শস্য বেশি জন্মে বা এর গবেষণা কেন্দ্র কোথায় এইগুলোই মূলত পড়তে হবে।





 





 



(৩) বাংলাদেশ জনসংখ্যা, আদমশুমারী, জাতি গোষ্ঠী ও উপজাতি সংক্রান্ত বিষয়ঃ – ৩ নম্বর





 



বাংলাদেশের জনসংখ্যার মধ্যে বাংলাদেশে সংগঠিত হওয়া আদমশুমারিতে জনসংখ্যা, নারী পুরুষের সংখ্যা, জন্ম ও মৃত্যুর হার, শিশু মৃত্যুর হার, মাতৃ মৃত্যুর হার ইত্যাদি।





 



ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীরা কোন জেলায় কারা বাস করে, জাতিগোষ্ঠির বিশেষ বৈশিষ্ট্য, উৎসব, পিতৃপ্রধান / মাতৃপ্রধান জাতি কারা ইত্যাদি





 





 



(৪) বাংলাদেশের অর্থনীতি – ৩ নম্বর





 



এই অংশের সিলেবাসটা একটু দেখে নিন।





 



“উন্নয়ন পরিকল্পনা প্রেক্ষিত ও পঞ্চবার্ষিকী, জাতীয় রাজস্ব, আয়-ব্যয়, রাজস্ব নীতি ও জাতীয় উন্নয়ন কর্মসূচী, দারিদ্র বিমোচন”





 



এই অংশে ভালোভাবে প্রস্তুতি নিতে গেলে অর্থনৈতিক সমীক্ষাটি দেখুন।





 



অর্থনৈতিক সমীক্ষা থেকে জিডিপি, প্রবৃদ্ধির এবং প্রবৃদ্ধির হার, এডিপি (বার্ষিক উন্নয়ন পরিকল্পনা), পঞ্চ বার্ষিকী পরিকল্পনা কোন সাল থেকে কোন সালে করা হইছে, কি কি লক্ষ্য ছিল। সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্য বা MDG তে আমাদের অর্জন;





 



দারিদ্র বিমোচন নেওয়া বিভিন্ন সামাজিক নিরাপত্তা যেমন কাজের বিনিময়ে খাধ্য, বিধবা ভাতা ও বয়স্ক ভাতা।





 



রাজস্ব নীতি – কত টাকা ট্যাক্স ফ্রি, কোন খাত ট্যাক্স ফ্রি, মুদ্রাস্ফীতি, মুদ্রা,





 





 



(৫) বাংলাদেশের শিল্প ও বাণিজ্যঃ – ৩ নম্বর





 



শিল্প উতপাদন ও আমদানি রপ্তানির উল্লেখযোগ্য কিছু তথ্য, কেন্দ্রীয় ব্যাংক তথা বাংলাদেশ ব্যাংক সহ অন্যান্য ব্যাংকের প্রধান প্রধান তথ্য, রিজার্ভ, রেমট্যান্সের সর্বেশেষ তথ্য, গার্মেন্টস শিল্পের উল্লেখযোগ্য কিছু তথ্য।





 





 



(৬) বাংলাদেশের সংবিধানঃ – ৩ নম্বর





 



এই অংশটি ৩ নম্বর থাকলেও এই অংশটি আসলে খুবই গুরুত্বপূর্ণ কারণ শুধুমাত্র বাংলাদেশের সংবিধান উপরেই বিসিএস লিখিত পরীক্ষায় ১০০ নম্বরের লিখিত পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করতে হয় যা বাংলাদশ বিষয়াবলী ২য় পত্র নামে পরিচিত।





 



মূলত এই অংশে বাংলাদেশের সংবিধান সম্পর্কিত তথ্য। মূলত সংবিধানের প্রস্তাবনা ও বৈশিষ্ট্য, মৌলিক অধিকার ও রাষ্ট্র পরিচালনার মূলনীতি, সংবিধানের সংশোধন সমূহ ইত্যাদি।





 





 



** সংবিধান সম্পর্কিত ছোট বই নীলক্ষেতে পাওয়া যায় এছাড়া ওয়েব সাইটে এর পিডিএফ ডাউনলোড করে নিতে পারেন।





 





 



(৭) বাংলাদেশের রাজনৈতিক ব্যবস্থাঃ – ৩ নম্বর





 



“রাজনৈতিক দল সমূহের গঠন, ভূমিকা ও কার্যক্রম, ক্ষমতাসীন ও বিরোধী দলের পারস্পরিক সম্পর্ক, সুশীল সমাজ ও চাপ সৃষ্টিকারী বিভিন্ন গোষ্ঠির নাম”





 



অর্থাৎ রাজনৈতিক দলগুলোর বৈশিষ্ট্য, ভূমিকা এবং এদের মধ্যে ইতিহাস, দুই একটা NGO এর নাম এবং তাদের কার্যক্রম।





 





 



(৮) বাংলাদেশের সরকার ব্যবস্থাঃ – ৩ নম্বর





 



“আইন, শাসন ও বিচার বিভাগসমূহ, আইন প্রণয়ন, নীতি নির্ধারণ, জাতীয় ও স্থানীয় পর্যায়ের প্রশাসনিক ব্যবস্থাপনা কাঠামো, প্রশাসনিক পুনর্বিন্যাস ও সংস্কার”





 



এখানে আইন, শাসন, বিচার বিভাগ মানে এই অংশগুলো সংবিধান থেকেই পড়তে হবে।





 



সংবিধানের ৪৮ নং অনুচ্ছ্বেদ থেকে শেষ পর্যন্তই এইগুলো আসে।





 



স্থানীয় প্রশাসনিক কাঠামোতে জেলা, উপজেলা, পৌরসভা, ইউনিয়ন, সিটি কর্পোরেশন এগুলোর গঠন মানে কতজন মেম্বার এসব, চেয়ারম্যান, মেয়র সহ সদস্য সংখ্যা ইত্যাদি। এছাড়া বিভিন্ন মন্ত্রণালয়, অধিদপ্তর, সায়িত্বশাসিত প্রতিষ্ঠানের নাম, নতুন গঠিত মন্ত্রণালয় এর নাম ইত্যাদি।





 





 



(৯ )অন্যান্য বিষয় সমূহঃ – ৩ নম্বর





 



এর মধ্যে বাংলাদেশের জাতীয় অর্জন, বিশিষ্ট ব্যক্তিত্ব, গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠান ও স্থাপনাসমূহ, জাতীয় পুরস্কার, বাংলাদেশের খেলাধুলাসহ চলচ্চিত্র, গণমাধ্যম- আগের প্রশ্ন অনুযায়ী।



 



 



 



আন্তর্জাতিক বিষয়াবলি-২০



 



১। সকল মহাদেশ পরিচিতি, মহাদেশের বিশেষভাবে বিখ্যাত পরিচিত স্থানের নাম,  পরিচয়, ভৌগলিকভাবে বিখ্যাত নাম ও উপনাম।



(যেমন, এশিয়া মহাদেশের মধ্য দিয়ে গেছে কোন রেখা গেছে?= ৯০ ডিগ্রি পূর্ব দ্রাঘিমা রেখা,  চীনের দুঃখ= হোয়াংহো, পৃথিবীর শীতলতম স্থান= রিজ (এন্টার্কটিকা), বিশ্বের কোন গ্রাম দুটি দেশে অবস্তিত?= পানমুনজাম, ইত্যাদি)



২। পৃথিবীর বিখ্যাত-কুখ্যাত, ছোট- বড়, বৃহত্তম – ক্ষুদ্রতম, দীর্ঘতম বিষয়গুলো  সম্পর্কে জানতে হবে।  এর মধ্যে ব্যাক্তি, স্থান ও অন্যান্য বিষয় অন্তর্ভুক্ত হবে।



৩। বিশেষ অঞ্চল পরিচিতি, বিশ্বের কতিপয় জাতিয় নাম ( যেমন ফিনল্যান্ড এর জাতিও নাম- মৌলি, গ্রিসের জাতিও নাম – হেল্লাস)।



(রেড ইন্ডিয়ান রা কোথায় বাস করে? উত্তর আমেরিকায়, গ্রিনল্যান্ড দ্বীপটির কার মালিকানায় আছে? ডেনমার্ক)



“সুপার সেভেন,  সেভেন সিস্টার্স, থ্রি টাইগার্স, ফোর টাইগার্স, ইন্দোচিন, ইস্ট এশিয়ান মিরাকল,  গোল্ডেন ট্রায়াঙ্গল, গোল্ডেন ক্রিসেন্ট, গোল্ডেন ওয়েজ, গোল্ডেন ভিলেজ”



৪। বিভিন্ন দেশের রাজধানী , মুদ্রা ও পার্লামেন্টের  নাম, একই নামে দেশের ও রাজধানির নাম।



৫। বিভিন্ন দেশের শাসন ব্যবস্থা ও সরকার ব্যবস্থা।



৬।  বিশ্বের বিখ্যাত প্রনালিসমুহ, সীমারেখা, খাল, বিখ্যাত কেলেংকারি, সীমান্ত, বিখ্যাত সকল শহর গুলো কোন কোন নদীর তীরে  অবস্তিত, প্রধান প্রধান ও বিখ্যাত সমুদ্র, নদী ও বিমানবন্দর গুলু  ও বিমানসংস্থা সম্পর্কে  ধারণা।



৭। বিখ্যাত হ্রদ, দ্বীপ, অন্তরীপ, জলপ্রপাত, মরুভুমি, পর্বত, পর্বতশৃঙ্গ, গিরিপথ, সুড়ঙ্গপথ বাঁধ, জাদুঘর ইত্যাদি সম্পর্কে ধারণা।



৮। সংবাদপত্র, সংবাদসংস্থা, কেন্দ্রীয় ব্যাংক, বিখ্যাত প্রাসাধ, অট্টালিকা, ভবন , মেঘাসিটি, সম্পর্কে ধারণা।



৯। বিভিন্ন দেশের স্বাধীনতা অর্জন ও উপনিবেশিক দেশ , উপজাতি ও তাদের  বাসস্থান সম্পর্কে ধারণা।



১০। জাতিসঙ্ঘ ও এর অঙ্ঘ সংঘটন সম্পর্কে ধারণা।  সংঘটনগুলোর  সদর দফতর, সদস্য রাষ্ট্রের সংখ্যা, কখন গঠিত হয় এবং এর সাথের সম্পর্কিত কোন বিখ্যাত,  আলোচিত- সমালুচিত ঘটনা।



১১। বিভিন্ন আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক, রাজনৈতিক, সামরিক ,  অর্থনৈতিক জোট ,  সংঘটনগুলোর  সদর দফতর, সদস্য রাষ্ট্রের সংখ্যা, কখন গটিত হয়



১২। আলোচিত- সমালুচিত অথবা বিখ্যাত বা কুখ্যাত যুদ্ধসমুহ এর সাথে সম্পর্কিত নেতা (হিটলার, মুসোলিনি) সম্পর্কে ধারণা। বিভিন্ন দ্বীপের মালিকানা নিয়ে রাষ্ট্রগুলোর মাঝে বিরোধ।



১৩। বিভিন্ন ধরনের বিখ্যাত সকল চুক্তি ও এর সাথে সম্পর্কিত দেশ, নেতা বা রাষ্ট্রপ্রধানগণ।



১৪। পুরষ্কার ও সম্মাননা



১৫। খেলাধুলা ও সাম্প্রতিক উল্লেখযোগ্য ঘটনা।





 



 ভূগোল (বাংলাদেশ ও বিশ্ব)+ পরিবেশ ও দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা+ নৈতিকতা, মূল্যবোধ ও সুশাসন)= ৩০



এখানে ভূগোল (বাংলাদেশ ও বিশ্ব), পরিবেশ ও দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা- এবং  নৈতিকতা, মূল্যবোধ  ও সুশাসন থাকছে ২০ মার্কস। ভূগোল  ও পরিবেশ থেকে আগে ও বিজ্ঞান অংশে প্রশ্ন আসত। সৌরজগৎ, আগ্নেয়গিরি, ভুমিরুপ এইগুলো ক্লাস ৮ এর সাধারন বিজ্ঞান, ক্লাস ৯ এর সামাজিক বিজ্ঞান এর ভূগোল অংশ দেখলে প্রস্তুতি হয়ে যাবে আশা করছি। নৈতিকতা, মূল্যবোধ  ও সুশাসন এর ক্ষেত্রে  ক্লাস ৯/১০ এর পৌরনীতি পরলে কিছুটা এবং সাধারণ সেন্স কাজে লাগালে প্রস্তুতি হয়ে যাবে।



  কম্পিউটার ও তথ্যপ্রযুক্তি- ১৫



 



এই অংশে সাধারন  বিজ্ঞান এবং কম্পিউটার ও তথ্যপ্রযুক্তি মিলে ১৫  মার্কস। মার্কস তোলার মোটামুটি সহজ অংশ বলেই মনে করি। বিজ্ঞানে বেশিরভাগ প্রশ্নই রিপিট হয়। আর কম্পিউটার ও তথ্যপ্রযুক্তি অংশটি বিসিএস এ নতুন হলেও ব্যাংক পরীক্ষার জন্য নতুন না। ব্যাংক গাইড গুলো দেখলে বুঝা যাবে  কম্পিউটার ও তথ্যপ্রযুক্তি থেকে কি ধরনের প্রশ্ন আসতে পারে। ব্যাংক গাইড থেকে কম্পিউটার ও তথ্য প্রযুক্তি সম্পর্কিত প্রশ্ন পরলে মোটামুটি ৯৮% কমন পরবে বলে আমার বিশ্বাস। তাই নতুন যুক্ত হলেও এই অংশ নিয়ে চিন্তামুক্ত থাকার জন্য পরামর্শ থাকল।



উল্লেখ্য বিষয়গুলোতে বিভিন্ন প্রশ্ন।